রায়হানকে থানায় নিয়ে যাওয়ার কারণে সিআইএ তাকে গ্রেপ্তার করেছিল

এফবিআই সূত্রে জানা গেছে, আসি আশিক এলাহী অপহরণের অভিযোগে রেহানকে বন্দর বাজার থানায় নিয়ে আসেন। আদেশে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছিল যে দুর্ঘটনার রাতে ঘটনাস্থলে থাকা তিন পুলিশ সদস্য আদালতে জমা পড়ে। আমি সন্দেহ করি যখন রেহানকে ফাঁড়িতে ধরা পড়ে অত্যাচার করা হয়েছিল এবং রেহানকে যখন ধরা হয়েছিল তখন সে সেখানে ছিল।

সিলেট নগরীর আখালিয়া নীহারিবাড়ার বাসিন্দা রেহানকে ১০ অক্টোবর রাতে সিলেটের বান্দরবাজার ফাঁড়িতে গ্রেপ্তার করে নির্যাতন করা হয়। পরের দিন রায়হান মারা গেলেন। এক্ষেত্রে কোনও মামলা ডেথ ইন কাস্টোডি (প্রতিরোধ) আইনের আওতায় আনলে সিটি পুলিশ তদন্ত কমিটি সত্যটি খুঁজে বের করে। 12 অক্টোবর, ফাঁড়ির দায়িত্বে থাকা এসআই আকবর হোসেন ভুনিয়াসহ চারজনকে বরখাস্ত করা হয় এবং আরও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। ১৩ ই অক্টোবর আকবর পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে এসে নিজেকে coveredেকে রাখেন।

নগর পুলিশ সূত্র জানায়, পুলিশ সদর দফতরে তিন সদস্যের একটি কমিটি আকবরের পালানোর বিষয়টি তদন্ত করছে। “টিডব্লিউআইসি” ফাঁড়িতে থাকা এসআই হাসান উদ্দিনকে 21 শে অক্টোবর সহায়তার জন্য পালানোর জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। আকবরের পালানো নিয়ে সমালোচনার মুখে সাবেক পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবেরিয়াকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁর জায়গা, বিশেষ সুরক্ষা ব্যাটালিয়ন (এসপিবিএন) ডিআইজি মো। নিশাউল আরিফের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে তিনি সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনার হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

READ  ওয়ার্ল্ড নিউজ, আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান যুদ্ধবিরতিতে একমত হয়েছে
Written By
More from Arzu Ashik

রাজাকের ৯০০ কোটি টাকা লুট করার লক্ষ্য ছিল

করোনার স্বাস্থ্য সরঞ্জাম কেলেঙ্কারী করোনাল সময়কালে, স্বাস্থ্য খাতে ৯০০ কোটি রুপি লুণ্ঠনের...
Read More

প্ৰত্যুত্তৰ দিয়ক

আপোনৰ ইমেইল ঠিকনা প্ৰকাশ কৰা নহ'ব । প্ৰয়োজনীয় ক্ষেত্ৰসমূহত *এৰে চিন দিয়া হৈছে