দু’দিনের এক্সপো শুরু, ডেনিম রফতানিতে বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনা

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :৮ নভেম্বর ২০১৮, ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 14 বার
দু’দিনের এক্সপো শুরু, ডেনিম রফতানিতে বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনা দু’দিনের এক্সপো শুরু, ডেনিম রফতানিতে বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনা

‘সহজতা’ প্রতিপাদ্য নিয়ে রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) দুই দিনব্যাপী ডেনিম এক্সপো শুরু হয়েছে। এবারের এক্সপোতে অংশ নিয়ে ডেনিম রফতানিতে বাংলাদেশের অপার সম্ভাবনার কথা বলেছেন বিদেশি ক্রেতা ও ডেনিম এক্সপার্টরা। একইসঙ্গে এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে পণ্যের আরও গুণগত মানোন্নয়ন ও নিজস্ব ডিজাইনের পোশাক প্রস্তুতে নজর দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

ডেনিম রফতানির পরিসংখ্যান তুলে ধরে বিদেশি ক্রেতারা বলছেন, ইউরোপের বাজারে ডেনিম রফতানির শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। জানুয়ারি-আগস্ট মেয়াদে প্রতিযোগী দেশগুলোর মধ্যে তুরস্ক ও চীনের ডেনিম রফতানিতে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হলেও বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪ দশমিক ২৩ শতাংশ। এ সময় মোট রফতানি হয়েছে ৯১ কোটি ইউরোর ডেনিম পণ্য। এই তথ্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরিসংখ্যান সংস্থা ইউরোস্টেটের।

অন্যদিকে ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব কমার্সের অফিস অব টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেলসের (ওটেক্সা) তথ্যমতে, জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৪২ কোটি ডলারের ডেনিম রফতানি হয়েছে। প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৪ দশমিক ২০ শতাংশ। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের আশার কথা হচ্ছে, চীনের রফতানি কমছে। আলোচ্য সময়ে মাত্র ১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। মার্কিন প্রশাসনের চলমান নীতির কারণে চীন থেকে রফতানি কমবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ এ সুযোগ কাজে লাগাতে পারে।

এবারের ডেনিম এক্সপোর ৯ম আসরের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল সিমপ্লিসিটি বা সহজতা। এক্সপোতে বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র, পাকিস্তান, চীন, জার্মানি, ইতালি, জাপান, স্পেন, তুরস্ক ও ভিয়েতনামসহ বিশ্বের ১২টি দেশের ৬৩টি ডেনিম ও ডেনিম পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। বাংলাদেশের যমুনা ডেনিম, আর্গন ডেনিম, স্কয়ার ডেনিম, জাবের অ্যান্ড জুবায়ের, শাশা ডেনিম ও ডেনিম এক্সপার্টের মতো খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। আর নেক্সট, ইন্ডিটেক্স, এইচএন্ডএম, সিয়ার্স, ভেনিসা, টার্গেট ইউএসএ’র মতো ব্রান্ডের প্রতিনিধিরা আসেন।

ডেনিম এক্সপো সম্পর্কে এর প্রতিষ্ঠাতা মোস্তাফিজ উদ্দিন বলেন, দেশি উৎপাদন ও বিদেশি ক্রেতাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে ডেনিম এক্সপো। বছরে দু’বার বিদেশি ক্রেতারা বাংলাদেশে এসে ডেনিম উৎপাদনের হালচাল পর্যবেক্ষণের অপেক্ষায় থাকেন। আর এক্সপোতে অংশ নেয়া বিদেশি ডেনিম উৎপাদকদের কাছ থেকে দেশীয় উৎপাদকরা সর্বশেষ ট্রেন্ড সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে পারেন। এতে উভয়ভাবেই বাংলাদেশের ডেনিম উৎপাদকরা উপকৃত হচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন, সেদিন বেশি দূরে নয় যখন বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশি ডেনিম রফতানি হবে। ইউরোপের বাজারে চীন ও তুরস্কের ডেনিম রফতানিতে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হলে বাংলাদেশের ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এই প্রবৃদ্ধিকে আরও ত্বরান্বিত করতে ক্রেতাদের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন জরুরি, ডেনিম এক্সপোর মাধ্যমে বাংলাদেশের উৎপাদকরা এ সুযোগ পাচ্ছেন।

মেলায় অংশ নেয়া যমুনা ডেনিমের হেড অব ডিপার্টমেন্ট শাহজেব প্যাটেল বলেন, দেশের অল্প কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে যমুনা ডেনিমের ভার্টিক্যালি ইন্টিগ্রেটেড লাইন রয়েছে। তাই যমুনা ডেনিম স্বল্পতম সময়ের মধ্যে ক্রেতার চাহিদা মোতাবেক পণ্য রফতানি করতে পারে। এক্সপোর নতুন বেশ কয়েকজন ক্রেতা আমাদের সঙ্গে ব্যবসা করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তিনি আরও জানান, এবার বিদেশি ক্রেতারা কালারড ডেনিম, প্রিন্টেড ডেনিম ও রিসাইকেল ফেব্রিক্সের প্রতি বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছেন। অনেকে আবার বাংলাদেশের নিজস্ব উৎপাদিত ফেব্রিক্স দেখতে চাচ্ছেন।

এক্সপোর প্রথম দিনে দুটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে জিনোলজিয়া এসআরএলের সেলস ডিরেক্টর জর্ডি জুয়ানি বাংলাদেশি পণ্য ও কাপড় ব্যবহার করে বাংলাদেশে উদ্ভাবিত আধুনিক ফিনিশিং টেকনোলজির বিস্তারিত তুলে ধরেন। পরের সেমিনারে বিশ্বখ্যাত ডেনিম ডিজাইনার পিয়োরে তুর্ক ডেনিমের সর্বাধুনিক ফিনিশিং প্রযুক্তিগুলো বাংলাদেশি উৎপাদকদের সামনে তুলে ধরেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × 2 =


আরও পড়ুন