ড্রাইভারকে মারপিটের ঘটনায় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত !

অথর
মাহাতাব উদ্দিন লালন  কুষ্টিয়া
প্রকাশিত :৭ নভেম্বর ২০১৮, ৬:১৬ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 112 বার
ড্রাইভারকে মারপিটের ঘটনায় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত ! ড্রাইভারকে মারপিটের ঘটনায় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত !

কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের প্রজেক্ট ডাইরেক্টর (পিডি)’র গাড়ি চালক ফিরোজ হোসেন কে মারপিটের অভিযোগে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম মুসতানজীদের বিরুদ্ধে ঘটনার সত্যতা প্রমাণ নিয়ে এক সদস্যের তদন্ত কমিটি করেছে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়( স্মারক নম্বর ৫৯.০০.০০০০.১০৪.২৭.০০২.২০১৮-৬৪২, তারিখ- ১৬.০৮.২০১৮ খ্রি) ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাখালী ঢাকা (স্মারক নম্বর অধি:/শৃঙ্খলা -১১৭/১৮/১০৭০০, তারিখ-১৪/১০/২০১৮ ইং )
পরিচালক (স্বাস্থ্য), খুলনা বিভাগ ডাঃ সুশান্ত কুমার রায়ের স্বাক্ষরিত পস্বাঃ/খুবি/শা-২/২০১৮/১৬৮১ স্বারক নম্বরে স্বাক্ষরিত চিঠি মারফত জানা যায়, চলতি বছরের মার্চ মাসের  ৫ তারিখ বিকেলে কুষ্টিয়া শহরের এনএস রোডে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের প্রজেক্টর ডাইরেক্টর পিডি’র গাড়িচালক ফিরোজ হোসেন কে বেধড়ক মারপিটের অভিযোগ  উঠে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম মুসতানজীদ এর বিরুদ্ধে । ঐদিন ঘটনাটি চাপা থাকলেও মার্চ মাসের ৮ তারিখ কুষ্টিয়ার স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় ” চিকিৎসক কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে জনসম্মুখে গাড়ির চালককে মারধরের অভিযোগ” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয় । এই সংবাদের সূত্র ধরে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঘটনাটি তদন্তে তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে খুলনা বিভাগের পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ সুশান্ত কুমার রায় কে দায়িত্ব প্রদান করেন ।
চিঠিতে উল্লেখ করা হয় ১১ ই নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখ দুপুর ১২ টায় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে সরেজমিনে এসে তদন্ত পূর্বক রিপোর্ট প্রদানের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয় ।
এই লক্ষ্যে পরিচালক (স্বাস্থ্য), খুলনা বিভাগ ডাঃ সুশান্ত কুমার রায় আগামী ১১ ই নভেম্বর কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে আসছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − 14 =