কে জিতবে, ভারত পাকিস্তান নাকি বৃষ্টি?

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :১৬ জুন ২০১৯, ৬:২৮ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 6 বার
কে জিতবে, ভারত পাকিস্তান নাকি বৃষ্টি? কে জিতবে, ভারত পাকিস্তান নাকি বৃষ্টি?

ক্রিকেটের যেকোনো আসরে সবচেয়ে মর্যাদাকর লড়াই ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। সেই ‘যুদ্ধে’ বিকালে মুখোমুখি হচ্ছে বিশ্বের এ দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। বিশ্বকাপের দ্বাদশ টুর্নামেন্টে ২২তম ম্যাচ এটি। দীর্ঘদিন ধরে এ ম্যাচ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছে।

গেল ১৪ ফেব্রুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে তথাকথিত পাক জঙ্গি হামলায় ভারতের ৪০ সেনার মৃত্যু ঘটে। এতে উত্তপ্ত হয়ে উঠে দুই পাড়ার রাজনীতি। চলতি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ না খেলতে দলের প্রতি আহ্বান জানান ভারতীয়রা।

আবার অনেকে মনে করেন, শুধু শুধু পাকিস্তানকে ছেড়ে দেয়ার কোনো কারণ নেই। মাঠের ‘যুদ্ধে’ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের হারের লজ্জা দিতে হবে। এসব কারণে উভয় দেশে গেল কয়েক মাস উত্তেজনা বিরাজ করে। তাই এবারের ভারত-পাকিস্তান খেলা হয়ে উঠেছে অনেক বেশি মর্যাদাকর। সেই লড়াইয়ে কে জিতে সেটি নির্ধারণ হচ্ছে আজ ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায়।

লম্বা সময় ধরে পাকিস্তানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলছে না ভারত। কেবল কোনো টুর্নামেন্ট হলেই ২২ গজে মুখোমুখি হয় ক্রিকেটের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। ২০১২ সালের পর নিজেরা কোনো দ্বিপক্ষীয় সিরিজে মুখোমুখি হয়নি। এর আগে ২০০৭ সালে সবশেষ সিরিজ খেলে দুদল। দুটি সিরিজই ছিল ভারতের মাটিতে।

ভারত সবশেষ পাকিস্তান সফর করে ২০০৬ সালে। এ চিত্রই বলে দিচ্ছে কী অবস্থায় রয়েছে ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক। সেটি এখন আরও বেশি গরম পুলওয়ামা-কাণ্ড ঘটনায়। তবু শেষ পর্যন্ত ২২ গজে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ভারত-পাকিস্তান।

ময়দানি লড়াইয়ে নামলে অতীতের কোনো ঘটনাই মাথায় থাকে না দুদলের ক্রিকেটারদের। তবে মনের মধ্যে বিদ্বেষ যে থাকবে না, তা কিন্তু নয়। সেই থেকেই এবার ম্যাচ জয়ের সর্বাত্মক চেষ্টা করবে উভয় দল। আর বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবারই উপায় নেই কোনো দলের। তাই পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচকে অন্য লড়াইয়ের চেয়ে বেশ আলাদা ভাবছেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলতে নামলেই সেরাটা বের হয়ে আসে বলে জানালেন তিনি। ভারতীয় ক্যাপ্টেন বলেন, পাকিস্তানের ম্যাচ আমাদের মধ্য থেকে সেরাটা বের করে আনে। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ বহু বছর ধরে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হয়ে আসছে। বিশ্বজুড়ে এ লড়াই নিয়ে আগ্রহ থাকে অনেক বেশি। এ রকম ম্যাচে খেলার সুযোগ পাওয়াটা একটা সম্মানের ব্যাপার। এটি আমাদের সবার ভেতরের সেরাটা বের করে আনে।

বিশ্বকাপের সূচি নির্ধারিত হওয়ার পর থেকে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের দিকে চোখ ক্রিকেটপ্রেমীদের। তাই আইসিসি অনলাইনে টিকিট ছাড়ার দুদিনের মধ্যেই তা শেষ হয়ে যায়। এ ম্যাচ সামনে রেখে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, টিভিতে শুরু হয়ে গেছে বিজ্ঞাপন যুদ্ধ। তবে এসব উত্তেজনার আঁচ নিতে চান না ভারতের অধিনায়ক কোহলি। মানসিকভাবে নিজেদের প্রস্তুত করে মাঠের খেলায় মনোযোগী হতে মরিয়া তিনি।

তবে পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে শতভাগ নির্ভার থাকতে পারছেন না ভারতীয় ব্যাটিং মায়েস্ত্রো। কারণ দলের অন্যতম সেরা অস্ত্র ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে ছাড়াই খেলতে হবে ভারতকে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেঞ্চুরির ইনিংস খেলার পথে হাতে চোট পান তিনি। এ বাঁহাতি ওপেনারকে না পাওয়াটা দলের জন্য ধাক্কাই বটে।

ভারতের মতো পাকিস্তানও ম্যানচেস্টারের ম্যাচ নিয়ে খুব বেশি অস্থির। এটিই স্বাভাবিক ব্যাপার। অতীত থেকে যা হয়ে আসছে, বর্তমানেও তেমনটিই হচ্ছে। তবে টিম ইন্ডিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে নামার আগে নিজেদের আরও ভালোভাবে প্রস্তুত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করলেন পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।

আগের ম্যাচে ফিল্ডিংয়ের ভুলে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ম্যাচ হারে পাকিস্তান। ভারতের বিপক্ষে ভুল না করার ব্যাপারে বেশ সতর্ক তিনি। বললেন, আগের ম্যাচে প্রচুর ভুল করেছি আমরা। সবচেয়ে বেশি ভুল ছিল আমাদের ফিল্ডিংয়ে। অনেক মিস, সঙ্গে ক্যাচ ড্রপ। দেখে মনেই হচ্ছিল না আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলছি। তাও বিশ্বকাপে। ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামার আগে ফিল্ডিংয়ে আমাদের আরও উন্নতি করা প্রয়োজন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ থেকে মাত্র একটি অর্জনই ছিল পাকিস্তানের। সেটি হলো পেসার মোহাম্মদ আমিরের দুর্দান্ত বোলিং। ১০ ওভারে মাত্র ৩০ রান দিয়ে ৫ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। এ ছাড়া দলের আর কোনো খেলোয়াড়ই পারফরম্যান্সে ছিটেফোঁটাও দেখাতে পারেননি। তাই ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে আমিরের বোলিং নৈপুণ্যে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে পারছেন সরফরাজ।

শুক্রবার সকালে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের ভেন্যুতে অনুশীলন করে পাকিস্তান। তবে মাঠে নেমেই পিচের দিকে ছুটে যান পাক অধিনায়ক সরফরাজ, কোচ মিকি আর্থার ও প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল হক। পিচের সামনে দাঁড়িয়ে বেশ কিছুক্ষণ শলা-পরামর্শ করেন তারা। হয়তো তখনই ম্যাচের ছক কষে ফেলেন দলের হর্তাকর্তারা। কিন্তু তখনও খেলার ভেন্যুতে পৌঁছাতে পারেনি ভারত। গতকাল গা গরমের জন্য অনুশীলনে নামেন কোহলি বাহিনী।

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে উত্তেজনায় আছেন দুদলের সাবেক খেলোয়াড়রাও। ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় দলের অধিনায়ক কপিল দেব পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে নিজ দেশকেই এগিয়ে রাখছেন।

পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদিও নিজ দেশের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে দলের ফিল্ডিং নিয়ে বেশ চিন্তিত তিনি।

তবে ম্যাচ নিয়ে যেভাবেই পরিকল্পনা করুক ভারত-পাকিস্তান। আর মাঠের বাইরে নিজেদের ঢঙে যেভাবেই উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলুক ক্রিকেটপ্রেমীরা তাতে কিন্তু সব আয়োজন ভেস্তে দিতে পারে বেরসিক বৃষ্টি। ম্যাচের দিন এর প্রবল সম্ভাবনা আছে। আবহাওয়া পূর্বাভাস তেমনই বলছে।

তবে বৃষ্টির এ লীলাখেলা নিয়ে ভাবছে না দুদল। নিজেদের খেলাতেই সবচেয়ে বেশি নজর তাদের। তাই দেখা যাক, রোববারের মহারণে কার জয় হয়- ভারত, পাকিস্তান নাকি বৃষ্টির।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 2 =