দিন দিন বিলুপ্তির পথে বাঁশ-বেত শিল্প, ধরে রাখতে নেই প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা ও উদ্যোগ

অথর
এস.এম. সরোয়ার পারভেজ  কুষ্টিয়া
প্রকাশিত :২৯ অক্টোবর ২০১৮, ৮:০২ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 41 বার
দিন দিন বিলুপ্তির পথে বাঁশ-বেত শিল্প, ধরে রাখতে নেই প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা ও উদ্যোগ ছবি: শামস প্রান্ত

 বাঁশ-বেত শিল্প দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের মধ্যে অন্যতম একটি শিল্প এবং এ শিল্পের সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাঙালির ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য।
একসময় বাঁশ-বেতের জিনিসপত্রের যথেষ্ট কদর থাকলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বাঁশের উৎপাদন কমে যাওয়া এবং প্লাস্টিক পণ্যসামগ্রী বাঁশ-বেতের পণ্যের বাজার দখল করে নেওয়ায় বাঁশ-বেত শিল্প আজ বিলুপ্তির পথে।
তাই বাঁশ ও বেতের তৈরি মনকাড়া সেই পণ্যগুলো এখন হারিয়ে যাওয়ার পথে।
এক সময় দেশের ঘরে ঘরে ছিল বাঁশের তৈরি এইসব সামগ্রীর কদর। বাঁশ ও বেত থেকে তৈরি বাচ্চাদের দোলনা, হাতপাখা, ঝাড়ু, টোপা, মাছ ধরার পলি, ঝুড়ি, ডালি, ধামা, মোড়া কুলোসহ বিভিন্ন প্রকার গৃহস্থলী সামগ্রী গ্রামাঞ্চলের সর্বত্র বিস্তার ছিল। তবে, বর্তমানে এসবের ব্যবহার কমে গেছে। তাছাড়া এসব পণ্যের কাঁচামাল বাঁশ-বেতের দামও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। আগে যে বাঁশ ২০ থেকে ৩০ টাকায় পাওয়া যেত সেই বাঁশ বর্তমান বাজারে কিনতে হচ্ছে দুইশত থেকে আড়াইশ টাকায়। কিন্তু পণ্যের মূল্য বাড়েনি।
ফলে এসবের কারিগরদের গুনতে হচ্ছে লোকসান। তাছাড়া নেই কোন সরকারী সুযোগ সুবিধাও।ফলে স্বল্প আয়ের মানুষেরা বিভিন্ন এনজিও বা সমিতি থেকে সুদের বিনিময়ে টাকা নিয়ে বাঁশ ও বেতজাত দ্রব্যসামগ্রী তৈরি করে বিক্রি করলেও এতে তাদের খরচ পোষায় না। তাই বর্তমানে অভাবের তাড়নায় এই শিল্পের কারিগরেরা দীর্ঘদিনের বাপ-দাদার পেশা ছেড়ে অন্য পেশার দিকে ছুটছে। তবে শত অভাব অনটনের মধ্যেও হাতে গোনা কয়েকটি পরিবার আজও পৈতৃক এই পেশাটি ধরে রেখেছেন।ফলে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন এই পেশার লোকজন।
বর্তমানে শৌখিন মানুষ ঘরে বাঙালির ঐতিহ্য প্রদর্শনের জন্য বাঁশ-বেতের সৌখিন সামগ্রী বেশি দাম দিয়ে কিনলেও মূলত সাধারন ব্যবহারকারীরা এসব পণ্যের বেশি দাম দিতে চান না।  ফলে এ শিল্প আজ প্রায় বিলুপ্তির হুমকির পথে।
বাংলার ঐতিহ্য বাঁশ ও বেতের সামগ্রীকে টিকিয়ে রাখতে হলে এর পেছনের মানুষগুলোকে দিতে হবে আর্থিক প্রণোদনা। এজন্য বর্তমানে এ শিল্পকে বাঁচাতে হলে সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানকেও এগিয়ে আসতে হবে। অন্যথায় বাঁশ-বেত শিল্প একদিন বিলুপ্ত হয়ে যাবে। বাঁশ-বেত শিল্পকে বাঁচাতে এখনই আমাদের সবার এগিয়ে আসা উচিত।
সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × three =